শীতকালে নলকূপের পানি গরম, আর গরমকালে বেশ ঠান্ডা মনে হয় কেন?

আপনারা হয়তো অনেকে বিষয়টি খেয়াল করেছেন যে, শীত যত তীব্র হয় নলকূপের পানি তত গরম মনেহয়, আর গরম যত তীব্র হয় নলকূপের পানি তত ঠান্ডা মনেহয়।
আসলে কি এরকম টা হয়? মানে সত্যি কি নলকূপের পানির তাপমাত্রা শীতের সময় বৃদ্ধি পায়, আর গরমের সময় হ্রাস পায়?
উত্তর : আসলে না, নলকূপের পানির তাপমাত্রা শীত গ্রীস্মকাল সারাবছরই একইরকম থাকে।
তাহলে প্রশ্ন করতে পারেন, তাহলে নলকূপের পানি শীতের সময় গরম, আর গরমের সময় কেনো ঠান্ডা মনেহয়?
উত্তর টি হলো নলকূপের পানির তাপমাত্রা পরিবর্তন হয়না, পরিবর্তন হয় বাইরের পরিবেশের তাপমাত্রা।
জ্বর হলে কেনো আপনার শীত লাগে? জ্বর হলে আপনার শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় ফলে গরম লাগার কথা, কিন্তু গরম না লেগে কেন শীত লাগে?
এবার আসা যাক আসল কথায়, নলকূপ /কল/ভূগর্ভের পানির স্বাভাবিক তাপমাত্রা সারাবছর +২৫°সে. থাকে।
এখানে আমাদের দেশে শীতের সময় সাধারনত সর্বনিন্ম তাপমাত্রা +০৫°সে.থেকে +১৫°সে. এর ভেতরে থাকে, আর তখন আমাদের দেহের বাইরের অংশ যেমন হাত পা বা হাত পায়ের ত্বকের তাপমাত্রাও ঐ সর্বনিন্ম তাপমাত্রার কাছাকাছি চলেআসে, আর ঐ অবস্থায় আমরা যখন নলকূপের পানি স্পর্স করি তখন সেই পানিকে বেশ গরম মনেহয়, কারন তখন নলকূপের পানির তাপমাত্রা থাকে +২৫°সে. ও একই সময় আপনার শরিলের বাইরের অংশের তাপমাত্রা থাকে +০৫°সে. হতে +১৫°সে. এর আশেপাশে।
অপরদিকে আবার গরমের সময় আমাদের দেশের তাপমাত্রা বেশিরভাগ সময়ে +৩৫°সে. থেকে +৪৩°সে. এর আশেপাশে থাকে।
আর এই অবস্থায় আমাদের শরীরের বাইরের অংশের তাপমাত্রাও, বাইরের তাপমাত্রার আশেপাশে থাকে, আর তখনও নলকূপের তাপমাত্রা +২৫°সে. ই থাকে, আর তখন আপনি যখন ঐ পানি স্পর্স করবেন তখন ঐ পানিকে বেশ ঠান্ডা মনেহবে।
যেহেতু ভূগর্ভের পানির তাপমাত্রা সারাবছর +২৫°সে. ই থাকে।এজন্য শীতের সময় শীতের তীব্রতা যত বৃদ্ধি পাবে, আপনার দেহের বাইরের অংশের তাপমাত্রা তত হ্রাস পাবে, আর কলের পানির তাপমাত্রা আপনার কাছে ততই বেশি গরম মনে হবে, কারন কলের পানির তাপমাত্রা তো তখনও +২৫°সে. থাকে।
একইদিকে এই ব্যাপার টি গরমের সময়ও শীতের উল্টাটি ঘটে।
তবে আপনি একটা বিশয় পরীক্ষা করলে এর প্রমাণ পাবেন, আর সেটা হলো, আপনি শীতের সময় কোন নলকূপ যখন প্রথম চাপ দিবেন তখন খেয়াল করবেন যে সেই পানি যথেস্ট ঠান্ডা, কারন ঐ পানি নলকূপের উপরের অংশে থাকায় সেই পানির তাপমাত্রাও বাইরের তাপমাত্রার সমান হয়ে যায় তাই ঠান্ডা লাগে, কিন্তু কিছুক্ষন নলকূপ চাপার পর দেখবেন এবার গরম পানি বের হচ্ছে। কারন এই পানি তো ভূগর্ভের ভেতরে ছিলো, যারফলে বাইরের পরিবেশ এর তাপমাত্রা ওখানে প্রভাব ফেলতে পারেনি। আর গরমের সময় এর বিপরিত অবস্থা হয়।

সৌজন্যে : পারভেজ আহমেদ পলাশ, প্রধান আবহাওয়া গবেষক বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা bwot weather Jessore bangladesh.

mm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *